তৃণমূল ছাড়ছেন উত্তরপাড়ার বিধায়ক: দলের কোর কমিটি ও জেলা তৃণমূলের মুখপাত্রের পদ থেকে ইস্তফা প্রবীর ঘোষালের

0

হুগলি: সোমবার হুগলিতে মুখ্যমন্ত্রীর জনসভায় গরহাজির ছিলেন উত্তরপাড়ার বেসুরো বিধায়ক প্রবীর ঘোষাল। তাঁর অবস্থান নিয়ে অনেকদিন ধরেই জল্পনা চলছিল। মঙ্গলবার তিনি তাঁর অবস্থান পরিষ্কার করবেন বলেও জানিয়েছিলেন। কিন্তু এদিন সাংবাদিক সম্মেলনে রীতিমত নিজের ক্ষোভ উগরে দিলেন তিনি। ইস্তফা দিলেন তৃণমূলের কোর কমিটি ও জেলা তৃণমূলের মুখপাত্রের পদ থেকে।

প্রসঙ্গত কয়েকদিন ধরেই তিনি বেসুরো গাইছিলেন। শুভেন্দু এক সভাথেকে প্রবীর ঘোষালকে বিজেপিতে আহ্বান জানিয়েছিলেন।এদিন জেলার একটি কলেজের ভবন উদ্বোধন নিয়ে জটিলতা প্রসঙ্গে আলোচনা করতে গিয়ে বললেন, “আমি নিজে মুখ্যমন্ত্রীকে (Mamata Banerjee) গোটা পরিস্থিতি জানিয়েছিলাম। উনি সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়েছিলেন। আমার সামনেই পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে ফোন করে বিষয়টি দেখার নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু এখন কিছুই হয়নি।” তাঁর অভিযোগ, মুখ্যমন্ত্রীর কথা কেউ শোনেন না। প্রবীরবাবুর আরও অভিযোগ, তাঁকে হারানোর জন্য দলের মধ্যে ষড়যন্ত্র চলছে। এমন পরিবেশ তৈরি হয়েছে যেখানে তিনি কাজ করতে পারছেন না। এরপরই বলেন, “আমি ভেবেছিলাম বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দেব। কিন্তু বিধায়ক না থাকলে সাধারণ মানুষকে হয়রানির শিকার হতে হয়। তাই সিদ্ধান্ত বদল করতে বাধ্য হয়েছি।” এরপরই জেলার তৃণমূলের কোর কমিটির সদস্যপদ ও জেলা তৃণমূলের মুখপাত্রের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর কথা জানান তিনি।

কিন্তু তৃণমূল ছাড়া নিয়ে তিনি বলেন, “কাজ করতে পারছিলাম না, নিজেকে ব্রাত্য মনে হচ্ছিল। তবে দল ছাড়ব কি না জানি না, সেসব নিয়ে ভাবিনি।” এমনকি প্রাক্তন বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভূয়সী প্রশংসা শোনাযায় প্রবীরবাবুর মুখে । বলেন, “রাজীবের মতো ভাল ছেলে কাজ করতে পারল না। আমাদের বুঝতে হবে পরিস্থিতি কোথায় গিয়েছে।”