পারদ চড়ছে বঙ্গ রাজনিতিতে, ১৫ দিনের ব্যবধানে আবারও বঙ্গ সফরে আসতে পারেন মোদী

0

কলকাতা: বঙ্গের রাজনিতিতে এখন পরতে পরতে উত্তেজনার পারদ চড়ছে। গত তিন মাসের রাজনৈতিক পরিস্থিতি দেখে রাজ্যবাসী বুঝে উঠেতে পারছে না আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে কার পালে হাওয়া লাগবে। এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে বঙ্গ জয়ের স্বপ্নে এখন বিভোর বিজেপি। প্রায় প্রতি মাসেই বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব রাজ্যে আসছেন আর একটা করে ধাক্কা দিয়ে যাচ্ছে শাসকদল তৃণমূলকে। গত ২৩ জানুয়ারি নেতাজির জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে বাংলায় এসেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ঠিক ১৫ দিনের মধ্যে আবারও বঙ্গে আসবেন প্রধানমন্ত্রী এমনটাই খবর বিজেপি সূত্রে।

৭ ফেব্রুয়ারি হলদিয়ায় শুভেন্দুর গড়ে এক সরকারি কর্মসূচি রয়েছে। সেখানেই তাঁর যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তবে মোদীর কোনও রাজনৈতিক কর্মসূচি নেই। তিনি ভারত পেট্রোলিয়ামের এক সরকারি কর্মসূচিতে যোগ দেওয়ার জন্য স্বল্প সময়ের জন্য বাংলার মাটিতে পা দেবেন। এমনটাই জানানো হয়েছে বিজেপির সূত্রে। তবে বিজেপি যেভাবে শাসকদলে ভাঙ্গন ধরাচ্ছে তাতে বিজেপি আপ্রাণ চেষ্টা করছে কিছুটা সময় বাড়িয়ে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক কর্মসূচি করাতে। তবে সেই উদ্দেশ্যে তাঁরা কতটা সফল হবে তা নিয়ে তাঁরা নিশ্চিত নয়। যদি এই কাজে বঙ্গ বিজেপি সফল হয় তবে আখের লাভ তাঁদের হবে সেই বিষয়ে নিশ্চিত।

প্রসঙ্গত গত ২৩ জানুয়ারি নেতাজির জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে কলকাতায় এসেছিলেন নরেন্দ্র মোদী। তাঁর সঙ্গে একই মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে সেই দিনের ঘটা ঘটনা নিয়েই বহু জলঘলা হয়ে গিয়েছে। এই সমত কিছুর মধ্যে ৩০ ও ৩১ জানুয়ারি বঙ্গে সরকারি এবং রাজনৈতিক কর্মসূচী করার কথা ছিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের। শাহের সভাতেই বহু তৃণমূলের হেভি ওয়েট নেতাদের যোগদানের কর্মসূচী ছিল। কিন্তু অপ্রত্যাশিত ভাবে দিল্লিতে ইজরায়েলি দূতাবাসের সামনে বিস্ফোরণ হওয়ায় বঙ্গ সফর বাতিল করেছেন অমিত শাহ। এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে আজকের বৃহৎ যোগদানের যে উদ্দ্যম নিয়ে বিজেপি মাঠে নেমেছিল সেই আশায় কিছুটা হলেও জল পড়ে গিয়েছে। সেই কারনে প্রধানমন্ত্রীর বঙ্গ সফরে আরও বড় ধামাকা করার প্রয়াস চালাচ্ছে বিজেপি।