বঙ্গ রাজনীতিতে চড়ছে পারদ: হুগলিতে মোদীর সভার পরেই বিজেপিকে পলাটা চ্যলেঞ্জ ছুঁড়তে জনসভা করবেন মমতা

0

হুগলি: বাংলায় বিধানসভা নির্বাচনের দিন ঘনিয়ে এসেছে। আর কয়েকদিনের মধ্যেই ঘোষণা করা হবে নির্বাচনের নির্ঘণ্ট। ২০২১-এর ভোট হল বিজেপির পাখির চোখ। যে কোনও উপায়ে বাংলার শাসন ভার নিজেদের হাতে নেওয়ার জন্য মরিয়া প্রয়াস চালাচ্ছে বিজেপি। শাসক বিরোধী দলের মধ্যে চলছে ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে লড়াই। নতুন বছরের শুরু থেকেই দু-দিন অন্তর অন্তর বঙ্গে আসছেন কেন্দ্রের বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বরা। এমনকি বঙ্গে এসে সভা করছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আবারও ২২ জানুয়ারী রাজ্যে বিজেপির জনসংযোগ বাড়াতে হুগলিতে সভা করতে আসছেন প্রধানমন্ত্রী। তবে তৃনমূলও ছেড়ে দেওয়ার পাত্র নয়। বিজেপিকে ক্ষমতা বোঝাতে মোদীর পাল্টা সভা করবেন তৃণমূল সুপ্রিমো।

আগামী ২২ তারিখ নোয়াপাড়া-দক্ষিণেশ্বর পর্যন্ত মেট্রো রেলের সম্প্রসারণ প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। সেই সঙ্গে হুগলির সাহাগঞ্জের ডানলপ কারখানার মাঠে জনসভা করবেন। অন্য দিকে বিজেপিকে পাল্টা জবাব দিতে ২৪ ফেব্রুয়ারি পালটা জনসভা করবেন বিজেপির প্রতিপক্ষ তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজনৈতিক মহলের মতে মোদী যে বক্তব্য দেবেন তার পাল্টা জবাব দিতেই ২৪ ফেব্রুয়ারি সভার আয়োজন করেছে তৃণমূল। বলা বাহুল্য যে এই মুহূর্তে জোড়া হাইভোল্টেজ সভা নিয়ে উত্তেজনার পারদ চড়ছে হুগলিতে। আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে শাসক-বিরোধী দুই দলের মধ্যে টক্কর চলছে। রাজ্য জুড়েই এখন চলছে রাজনৈতিক দলের সভা ও পাল্টা সভা। বলা ভালো যে হুগলিতে ১৮ টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৬ টি কেন্দ্রই তৃণমূলের দখলে। তাই এই জেলায় বিজেপির দাঁত ফোটানো একটু চাপের ব্যপার। তাই হুগলির জমি দখল করতে স্বয়ং ময়দানে নামছেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, ১৮ ফেব্রুয়ারি অর্থাৎ বৃহস্পতিবার দক্ষিণ ২৪ পরগণার নামখানা থেকে বিজেপির পঞ্চম তথা শেষ পরিবর্তন যাত্রার সূচনা করবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। জানা গিয়েছে, অমিত শাহ ১৮ ফেব্রুয়ারি কপিল মুনির আশ্রমে প্রথম পুজো দিতে যাবেন। পুজো দেওয়ার পর শাহ নামখানার মাঠে গিয়ে জনসভা করবেন। সেই জনসভার পরেই নামখানা থেকেই পঞ্চম তথা শেষ পরিবর্তন যাত্রার সূচনা করবেন। সেই করবেন রোড শো-ও। সব শেষে মধ্যাহ্নভোজ সারবেন এক সুব্রত বিশ্বাস নামের এক উদ্ধাস্তু পরিবারের সঙ্গে। এটাই প্রথম নয় এর আগেও বাংলায় এসে এক কৃষক পরিবারের কাছে মধ্যাহ্নভোজ সেরেছেন। বাংলার জনগণের মন পেতে আপ্রাণ প্রয়াস যে বিজেপি চালিয়ে যাচ্ছে তা তাঁদের কার্যকলাপ দেখে সম্পূর্ণ স্পষ্ট।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here