তৃণমূল ভাঙ্গানোর কাজ শেষ তাই কি গুরুত্ব কমেছে? বিজেপির প্রার্থী তালিকা নির্বাচনে ডাকা হল না মুকুল রায়কে

0

কলকাতা: বাংলায় বিধানসভা নির্বাচনের ঘণ্টা বাজিয়ে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। সেই কারনে এখন সমস্ত দলগুলি তাদের যোগ্য প্রার্থী খুঁজতে ব্যস্ত। কে জয় ছিনিয়ে এনে দেবে তাই নিয়েই শাসক বিরোধী দলে চলছে জোর আলোচনা। তৃণমূলকে টেক্কা দিতে বিজেপি একটু বেশী খাটছে। বলা ভালো যে তৃণমূল ছেড়ে মুকুল রায় বিজেপিতে যাওয়ার পরেই নিজের ক্ষমতা দেখিয়েছেন। ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির সাফল্যের পিছনে ছিলেন মুকুল রায়। তবে ২০২১-এর নির্বাচনে সেই ভাবে গুরুত্ব দিচ্ছে না এই নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা।

মুকুল রায়কে বাংলার চাণক্য বলেই উল্লেখ করা হয়। ২১-এর নির্বাচনের আগে বিজেপির লক্ষ্য ছিল তৃণমূল থেকে শুভেন্দু অধিকারীকে সরানো। সেই কাজে সফল তো হয়েছেন সেই সঙ্গে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে গিয়েছেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় সহ বহু তৃণমূলের নেতাকর্মী। তৃণমূল ভাঙ্গানোর কাজ শেষ হয়ে গিয়েছে টাই কি গুরুত্ব কমেছে মুকুল রায়ের? এমনটা প্রশ্ন উঠছে। কারণ বন নির্বাচনের রাশ নিজের হাতে রেখেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। বঙ্গ দখলের জন্য বিজেপির কারা কারা প্রার্থী হবেন তা নিয়ে আলোচনাতে দিলীপ ঘোষকে ডাকা হলেও মুকুল রায়কে ডাকা হয়নি। এমনকি বেশ কয়েক দিন ধরেই বিজেপিতে সক্রিয় ভাবে দেখা যাচ্ছে না। এই সমস্ত কিছু নিয়েই নির্বাচনের নানা জল্পনা শুরু হয়েছে।

বলা ভালো যে বেশ কয়েকদিন আগেই মুকুল রায় বলেছিলেন, “সঠিক সময়ে জায়গা ছাড়তে শিখতে হয়। তাঁর এবার জায়গা ছাড়ার সময় এসেছে।” বিজেপির হয়ে এত কাজ করা সত্বেও মুকুলের মুখে এই ধরনের মন্তব্য সোনার পর থেকেই জল অনেকদূর গড়িয়েছে। নানান আলোচনা সমালোচনা হয়েছে। তাঁর পর আবারও ডাক পেলেন না তিনি। এমনকি অমিত শাহের উপস্থিতিতে বিজেপির বৈঠকে ডাকা হয়নি তাঁকে। নির্বাচনের শেষ মুহূর্তে যে কি হতে চলেছে কার পালে যে হাওয়া লাগবে তা এই সমস্ত ঘটনা দেখার পর রাজ্যবাসীর কাছে বোঝা কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে।