টিকিট পেলেও, তৃণমূল ছাড়ে বিজেপিতে যাচ্ছেন মালদহের তৃণমূল নেত্রী সরলা মুর্মু

0

মালদাহ: কিছুটাই সন্দেহের বসেই বেশ কিছু পুরোনো বিধায়ককে প্রার্থী তালিকা থেকে বাদ দিয়েছে শাসক শিবির। সেই জায়গায় আনা হয়েছে বেশ কিছু নতুন মুখকে। যা একেবারেই মেনে নিতে পারছেনা না ‘দিদি’র অনেক পুরনো সৈনিকরা। এবার ওই পুরোনো বিধায়করাই এখন ভিড় করেছে বিজেপির কার্যালয়ের সামনে। নাম লেখাচ্ছে দলবদলুদের তালিকায়। ঠিক এমনটাই পূর্বানুমান করেছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কিন্তু বিধানসভা নির্বাচনের টিকিট পাওয়ার সত্ত্বেও গেরুয়া শিবিরে যাচ্ছে মালদহের তৃণমূল নেত্রী সরলা মুর্মু। অজুহাত, বারবার অনুরোধের করলেন তৃণমূলনেত্রী তাঁকে তাঁর পছন্দের আসনটাই দেননি। তাই নির্বাচনের প্রাক্কালেও তৃণমূলে ধস কিংবা বিজেপি’তে যোগদান পর্ব অব্যাহত। অন্যদিকে বিজেপিও তাদের প্রথম দু’দফা নির্বাচন অর্থাৎ ৬০ টি আসনের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করে দিয়েছে। তাই সদ্য দলবদলুদের নজর এখন বাকি আসনগুলোর উপর। টিকিট পাওয়ার পরও সরলা মুর্মুর এহেন সিদ্ধান্তে নানামহলে উঠছে প্রশ্ন। ঠিক কি কারণে নির্বাচনের প্রাক্কালে তাঁর এহেন দলত্যাগের সিদ্ধান্ত? সরলা মুর্মুর ব্যাখ্যা, বহুবার দলকে জানিয়েছিলেন, পুরাতন মালদহের প্রার্থী হতে চান তিনি। কিন্তু দল তাতে কর্ণপাত করেনি। হবিবপুরের প্রার্থী করা হয়েছে তাঁকে। যা মোটেও ভালভাবে নেননি তিনি। আর তাই দেরী না করে রবিবার রাতেই ট্রেন ধরে মালদাহ থেকে কলকাতার উদ্দেশ্যে রওনা দেন। সূত্রের খবর সোমবারই তিনি পদ্ম শিবিরে নাম লেখাবেন।

এদিকে শারীরিক অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে সরলা মুর্মুকে প্রার্থী পদ থেকে সরানোর কথা ঘোষণা করেছে তৃণমূল। তাঁর জায়গায় হবিবপুরের প্রার্থী হচ্ছেন প্রদীপ বাস্কে। উল্লেখ্য, শুধু সরলা মুর্মু নয়। সোনালী গুহ, আরাবুল সহ তৃণমূলের একাধিক দাপুটে নেতা আসন্ন নির্বাচনে টিকিট পায়নি। ফলে প্রার্থীতালিকা ঘোষণা হতেই দলের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছেন তাঁরা। নিজের কার্যালয় ভাঙচুর করেছেন ভাঙড়ের দাপুটে নেতা আরাবুল ইসলাম। এদের অনেককেই টিভির পর্দায় টিকিট না পাওয়ার দুঃখে হাপুশ নয়নে কাঁদতে দেখা গিয়েছে।