প্রচারে বেরিয়ে পায়ে চোট,আঘাতকে গুরুত্ব না দিয়ে জোরালো প্রচার চালালেন সাংসদ মিমি চক্রবর্তী 

0

হুগলী: শুরু হলো বঙ্গে নির্বাচন।বিভিন্ন জায়গায় নির্বাচন হবে বিভিন্ন তারিখে ।তার আগে রাজনৈতিক দল গুলির প্রচার এখন তুঙ্গে।তৃনমূলের তারকা প্রচারক মিমি চক্রবর্তী। দলের মনোনীত প্রার্থীদের জন্য প্রতিদিনই প্রচারে যাচ্ছে বিভিন্ন জেলায়।অংশ গ্রহণ করছেন বিভিন্ন সভা ও রোড শো তে।ব্যস্ত শিডিউল মাঝে ঘটল ছন্দ পতন। তৃনমূলের এই তারকা প্রার্থী ভোট প্রচারে বেরিয়ে পায়ে চোট পান ।তবে পিছিয়ে যাওয়ার পাত্রী নন মিমি।চোট কে উপেক্ষা করেই চলছে তাঁর প্রচার পর্ব।

শুক্রবার সাংসদ মিমি প্রচারে যান হুগলির সপ্তগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্রের প্রার্থী তপন দাশগুপ্ত এবং পুড়শুরার তৃণমূল প্রার্থী দীলিপ যাদবের সমর্থনে। এদিন মিমির হেলিকপ্টার নামে বাশবেরিয়ার ফুটবল খেলার মাঠে।সেখান থেকে গাড়িতে পৌঁছে যান বিটিপিএস টাউনশিপ ।এরপর বাঁশবাড়িয়া মন্দির সংলগ্ন মাঠে সভা করেন সাংসদ মিমি। এদিনের সভা থেকে মিমি তপন দাশগুপ্ত কে জেতানোর আহ্বানে বলেন ‘তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা লড়তে জানেন ।যে দিদি আপনাদের জন্য কাজ করেন তাঁর হাত কে শক্ত করতে হবে।ভুল করে কখনো পদ্ম ফুল তুলতে যাবেন না ।তাহলে পাক থেকে আর উঠতে পারবেন না’।

এরপর মিমির গাড়ি চলে যায় পুড়শুরায় উদ্দেশ্যে সেখানে যাওয়ার সময় গাড়িতে রাখা মাইক ও অন্যায় সামগ্রী মিমির পায়ে পড়ে যায় এবং তিনি চোট পান।এর পরে তার পায়ে প্রাথমিক ভাবে তার পায়ে বরফ দেওয়া হয়।এরপর দীলিপ যাদবের সমর্থনে সভা ও সারেন ।এরপরে সে হেলিকপ্টার এ ফিরে আসেন কলকাতায়।এর আগেই ১০ই মার্চ নন্দীগ্রামে মনোনয়ন জমা দেওয়ার পরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর পায়ে চোট পান এবং হাসপাতালে ভর্তির পর চিকিৎসা হয় মুখ্যমন্ত্রীর ।এরপর থেকে হুইল চেয়ারে চড়েই প্রচার চালাচ্ছেন ।এর পর মিমি ও তার চোট কে উপেক্ষা করে প্রচার চালানো আবারও প্রমাণ করলো তৃনমূলের লড়াকু মনোভাব চোট আঘাত কে উপেক্ষা করেই তারা তাদের কর্মসূচি চালিয়ে যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here