বলরামপুরে গাড়িতে হামলা, মারের ঘটনাকে ঘিরে বিক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী 

0

হুগলি: নির্বাচনের আগে রাজ্যের নানা জায়গায় চলছে রাজনৈতিক হামলার ঘটনা। তেমনই এক ঘটনা কে ঘিরে বিজেপিকে নিশানা করে গোঘাটের সভা থেকে কটাক্ষ তৃণমূল সুপ্রিমর। এদিন হুগলির গোঘাটের সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘নন্দীগ্রামের বলরামপুরে আমাদের একটা ছেলেকে এমন মেরেছে যে সে বাঁচবে কিনা জানি না। এলাকায় অত্যাচার করেছে। এর পেছনে যারা রয়েছে তাদের একসময় আমি দুধ কলা দিয়ে পুষেছিলাম। ভোটে দাঁডি়য়েছিস। লড়াই কর না! বলরামপুরে গিয়েছিলাম। আমার গাড়িতে হামলা করছে। গাড়িতে দুমদাম মারছে। এত সাহস! শুধু ভোট বলে চেপে যাচ্ছি। তা না হলে দেখে নিতাম কার কতবড় চেহারা’।

এছাড়াও মুখ্যমন্ত্রী বলেন ‘যাদের মারা হয়েছে তাদের স্ত্রী-রা আমাকে বলেছে আমার স্বামীকে ভিক্ষে দিন। একজনের মেয়েকে বলেছে, তৃণমূলকে ভোট দিলে তুলে নিয়ে যাব। এতবড় সাহস! উত্তরপ্রদেশরে গুন্ডারা ভেবেছে কি! হাথরস করেছে বলে এখানে মেয়েদের গায়ে হাত দেবে? করে দেখা? বিহার থেকে গুন্ডা এনে ভোট করা হচ্ছে? কালও নন্দীগ্রামের গোকুলনগর, বোয়ালে ঘরে ঘরে গিয়ে ভয় দেখিয়েছে। ভোট ফুরলে সব কেস খুঁজে বের করব। মনে রাখবে গুন্ডা বিজেপিকে ভোট দেবেন না’। অত্যন্ত ক্রুদ্ধ হয়ে সরব হন এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের টিকিট দেওয়া প্রসঙ্গে এদিন বিজেপিকে তীক্ষ্ণ সুরে কটাক্ষ করে বলেন ‘বিজেপি এমপি, এমএলএদের টিকিট দিয়েছে। কটা জায়গায় এদের সুযোগ দেওয়া হবে! বলে কিনা বাংলাকে সোনার বাংলা করা হবে। বাংলাকে বাংলা বলতে পারে না। বলে কিনা সুনার বাংলা। ঠিকমতে উচ্চারণও করতে পারে না। আমি রাজ্যের নামটা বাংলা করতে চেয়েছিলাম। ওরা করেনি। এরা বাংলাকে ঘৃণা করে।

এছাড়াও এদিন মমতা সিপিএম আমলের গোঘাটের কথা তুলে বলেন, ‘এইসব এলাকায় সিপিএম হার্মাদরা অত্যাচার করত। আজ তারা বিজেপিতে। একসময় গোঘাটে মানুষ কথা বলতে পারত না। অনিলবাবু মারা গিয়েছেন। মৃত মানুষদের নিয়ে আমরা কথা বলি না। এটা আমাদের সৌজন্য। জয়রামবাটি, কামারপুকুর, কোতুলপুর আমি অনেকবার এসেছি। মনে পড়ে চমকাইতলায় আমরা মিটিং করছি,বাইরে গুলি চলছে। সিপিএম-এর গুন্ডারা ওই কাজ করছিল। সেইসব হার্মাদরা এখন বিজেপিতে যোগ দিয়েছে। অজিত পাঁজাকে আটকে রেখে খুন করা চক্রান্ত করা হয়েছিল। খবর পেয়ে আমি চমকাইতলা থেকে ছুটে যাই। আমার কছে এসব নতুন নয়। এইসব এলাকাকে আমি জানি।

মুখ্যমন্ত্রী গড়বেতার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, ‘ওখানে এক মহিলা আমাকে বলেছিলেন, মা আমাকে একটা বন্দুক দিবি? আমার ২ ছেলেকে ওরা খুন করেছে। আমি ওদের খুন করব। এখন গোঘাট, আরামবাগ বদলে গিয়েছে। মনে রাখতে হবে উন্নয়নের কথা মাথায় রাখতে হবে। যে উন্নয়নের সঙ্গে নেই তাদের সঙ্গে আমি নেই। গোঘাট পর্যন্ত রেল এসে গিয়েছে। এটা আমার করা। কামারপুকুর থেকে তারকেশ্বর ট্রেন চলবে। আমরা তারকেশ্বর, ফুরফুরার উন্নয়ন করেছি। আরামবাগ মাস্টার প্ল্যান তৈরি করছি। খরচ হবে ৪০ কোটি টাকা। এতে বন্য আটকানো যাবে। মেচেদা থেকে শিলিগুড়ি পর্যন্ত ৪ লেনের রাস্তা হবে। মুখ্যমন্ত্রী এদিনের তাঁর বক্তৃতায় বিজেপিকে তীক্ষ্ণ কটাক্ষের সাথেই রাজ্যের উন্নয়ন প্রসঙ্গও তুলে ধরেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here