মীনাক্ষীই এখন সবার অনুপ্রেরণা, জামুড়িয়ার লড়াইয়ে প্রস্তুত সিপিএম প্রার্থী ঐশী

0

জামুড়িয়াঃ নন্দীগ্রামে দুই মহারথীর মহা সংগ্রাম। আর তার মাঝে তিনি নিতান্তই নিমিত্ত মাত্র। শুরু থেকে এমনটাই মনে করে আসছেন ভোট পর্যবেক্ষকরা। তবু মমতা বনাম শুভেন্দু নক্ষত্রযুদ্ধের মধ্যেও জ্বলে উঠলেন সংযুক্ত মোর্চার সিপিএম প্রার্থী মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায়।

মীনাক্ষী যদি জেতেন এবারের ভোটে সেটা হবে নিঃসন্দেহে সবচেয়ে বড় অঘটন। কিন্তু এই এক মাসে নন্দীগ্রামের সত্যিকারের ঘরের মেয়ে হয়ে উঠতে পেরেছেন তিনি। তিনি এখন নন্দীগ্রামের কাজলা দিদি।

বৃহস্পতিবার নন্দীগ্রামে যখন ভোটের লড়াই লড়ছেন মীনাক্ষী, তখন আসানসোলে মনোনয়ন জমা দিলেন ঐশী। এদিন ঐশীর সঙ্গে ছিলেন মীনাক্ষীর বাবা মনোজ মুখোপাধ্যায় । মনোনয়ন জমা দিয়ে বেরিয়ে আসার পর বললেন, মীনাক্ষীই এখন সবার অনুপ্রেরণা। মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার, ভোটের লড়াই। দশ বছর পর নন্দীগ্রামের মানুষ সেই ভোট দিতে পারছেন, নেতৃত্বে অবশ্যই সংযুক্ত মোর্চার সিপিআইএম প্রার্থী মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায়। সিপিএম প্রার্থী ঐশী তাঁর নিজের কেন্দ্র জামুড়িয়া প্রসঙ্গে বলেন, ভোটের প্রচারে বেরিয়ে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে খুব ভাল সাড়া পাচ্ছেন তিনি। জামুড়িয়া কেন্দ্রটি গত সাড়ে চার দশক ধরে রেখেছে বামেরা। ”এবারও এখানে লাল পতাকারই জয় হবে”, বলেন দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের এসএফআই নেত্রী। তিনি বলেন, ”তৃণমূল বা বিজেপি – এই দুই দলের আসল চেহারা বাংলার মানুষ দেখে নিয়েছে। তাই তাঁরা এদের থেকে মুক্তি চাইছেন। বামপন্থীরা এই দুই অপশক্তির বিরুদ্ধে জান-কবুল লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে।”

জীবনে প্রথমবার বিধানসভা ভোটে প্রার্থী হয়ে নন্দীগ্রামে সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায় যেভাবে সাহস আর ধৈর্য্যের সঙ্গে সমস্ত প্রতিকূল পরিস্থিতির মোকাবিলা করলেন, তা তরুণ প্রজন্মের রাজনীতিকদের কাছে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকল বলে মন্তব্য করলেন ঐশী ঘোষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here