বিশ্বস্ত নয়, দলে ছিল তাই সহ্য করেছি: শুভেন্দুকে ফের একহাত নিলেন মমতা

0

কলকাতা: ২১ এর নির্বাচনে হাইভোল্টেজ লড়াইয়ের স্থান ছিল নন্দীগ্রাম। মুখোমুখি লড়াই ছিল রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীর। নন্দীগ্রামে দিদি বনাম দাদার লড়াইয়ের সাক্ষী ছিল গোটা বাংলা। রণভূমিতে সম্মুখ সমরে শুভেন্দু – মমতা। যা ভোটের উত্তাপকে অনেকটা বাড়িয়ে দিয়েছিল। আর এই নন্দীগ্রাম নিয়েই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এক বক্তব্যকে ঘিরে রাজ্য রাজনীতি আবারও সরব হয়েছে।

বৃহস্পতিবার এক সংবাদমাধ্যমের সাথে সাক্ষাৎকারে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “নন্দীগ্রামে ১০টি বুথে রিগিং করেছে বিজেপি। আমি তিন ঘণ্টা বয়ালে বসে না থাকলে ৭০টি বুথে ওরা রিগিং করত। তেমনই পরিকল্পনা করেছিল। অযথা আমি ওখানে বসেছিলাম না। ওখানে আমাদের এজেন্টকে বসতে দেয়নি। মেরে মুখ ফাটিয়ে দিয়েছে।” শুভেন্দু অধিকারী সম্পর্কে তিনি বলেন, “ও কখনও আমার বিশ্বস্ত ছিল না। নন্দীগ্রামে বৈঠক করতে গিয়েছি, মঞ্চ থেকে নেমে গিয়েছে।”

মমতা আরও বলেন, “বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য নন্দীগ্রামে বাপ–ব্যাটাকে কনফিডেন্সে নিয়ে সূর্যোদয় করেছিলেন। পরে আমি বিশদে সব জানতে পেরেছি। দরকার হলে লক্ষ্মণ শেঠকে জিজ্ঞেস করুন। দলে ছিল। তাই সহ্য করেছি। নন্দীগ্রামের ফল কী হবে, সেটা মানুষ ঠিক করবে। মানুষ যে ফল দেবে, তাই হবে।” বলা বাহুল্য, নন্দীগ্রামের মাটিতে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী নিজেই ঘোষণা করে দিয়েছিলেন যে দলবদলু শুভেন্দুর গড় নন্দীগ্রাম থেকেই তিনি লড়বেন। তাতেই নড়েচড়ে বসেছিল রাজ্য গেরুয়া শিবির। শুভেন্দুকেও তড়িঘড়ি করে মুখ্যমন্ত্রীকে ‘হাফ লাখ’ ভোটে হারানোর চ্যালেঞ্জ ছুঁড়তে হয়েছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here