কয়লা ও গরু পাচারে অভিযুক্ত যুব তৃণমূল কংগ্রেস নেতা বিনয় মিশ্রকে চেনেন না, মন্তব্য মমতার

0

 কলকাতা: ২১শের বিধানসভা নির্বাচন যতই এগিয়ে যাচ্ছে ততই সরগরম হচ্ছে রাজ্য রাজনীতি।এরই মধ্যে সিবিআই জোর কদমে তল্লাশি চালিয়ে যাচ্ছে কয়লা ও গরু পাচার চক্রের। এবার এই পাচারে অভিযুক্ত তৃণমূলের যুব নেতা বিনয় মিশ্র কে কার্যত চেনেনই না এমনটাই সাফ জানিয়ে দিলেন তৃণুমল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।আর এই খবর সামনে আসতেই শুরু হয়েছে তুমুল চর্চা।

 এই প্রসঙ্গে মমতা বলেন ‘এই সব নানারকম নাম তুলে কথা বলার কোনও অর্থই হয় না। কারণ এমন কাউকে আমি চিনি না’।এবারের নির্বাচনের মধ্যেই প্রকাশ্যে আসা কিছু রাজনৈতিক অডিও নিয়ে বেশ চাঞ্চল্য তৈরি হয়, এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী বলেন ‘এটা অনৈতিক। কারও কথা গোপনে রেকর্ড করা ঠিক নয়। ব্যক্তিগত আলাপচারিতা সম্মতি ছাড়া রেকর্ড করা এবং তা প্রকাশ্যে নিয়ে আসা অনৈতিক’। যুব তৃনমূলের সাধারণ সম্পাদক বিনয় মিশ্রর নামে লুক আউট নোটিশ জারি করেছে সিবিআই।কয়লা ও গরু পাচারে তাই নাম সামনে এসেছে।ইতিমধ্যে তার বাড়িতেও বহুবার তল্লাশি চালিয়েছে সিবিআই।

আর এই বিষয় কে কেন্দ্র করেই ধারাবাহিক প্রচার চালিয়েছেন বিজেপি নেতারা।নানা ভাবে তারা জানিয়েছেন বিনয় মিশ্রর সাথে এই বিষয় সম্পর্ক রয়েছে তৃনমূলের প্রথম সারির নেতাদের।তবে এই বিষয় তৃণমূল সুপ্রিমো সম্পূর্ণ অস্বীকার করেন বিনয় মিশ্রকে চেনেন বলে ফলে কার্যত বিরোধীদের এই দুর্নীতির অভিযোগে জল পড়লো এমনটাই মনে করেন রাজনৈতিক কুশীলবরা।গতকাল অর্থাৎ বৃহষ্পতিবার এক সংবাদ মাধ্যমের একটি সাক্ষাৎকারে বিনয় মিশ্রর সাথে তৃনমূলের যোগ প্রসঙ্গও উঠলে তৃণমূল সুপ্রিমো বলেন ‘ আমি চিনি না। তাছাড়া কয়লা তো কেন্দ্রীয় সরকারের ব্যাপার।’ এদিন যুব তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় অন্য একটি অনুষ্ঠানে বলেন বিনয় মিশ্রকে রাজ্য সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে মান্যতা দিয়েছেন।এদিন তিনি বলেন ,এরূপ অভিযোগের জন্য বিনয়কে তার পদ থেকে সরানো হবে না। অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের যুক্তি, মুকুল রায়ের মতো একাধিক অভিযুক্ত নেতাকে যেখানে সর্বভারতীয় সংগঠনের পদে রেখেছে বিজেপি। তাই এই বিষয় বিজেপির কোনও বক্তব্যকেই গুরুত্ব দেওয়া হবে না তৃনমূলের তরফে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here