৪০ বছর আগে লেখা উপন্যাসে রয়েছে করোনা ভাইরাসের উল্লেখ

0

সুব্রত সাউ, ইউহান: শুধু চিন নয় করোনা মহামারির আতঙ্ক গ্রাস করছে গোটা বিশ্বকে। এমন সময়ই এক টুইটে বেরিয়ে এল এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। এই টুইটেই প্রথম নজরে আসে চিনের ইউহান শহরে এই ভাইরাসের কথা ৪০ বছর আগে লেখা ‘দ‌্য আইজ অফ ডার্কনেস’ (The Eyes of Darkness) নামক উপন্যাসে বলা হয়েছে। এই ঘটনায় শোরগোল পড়েছে গোটা বিশ্বে।

১৯৮১ সালে লেখা একটি রহস‌্য কাহিনী ‘দ‌্য আইজ অফ ডার্কনেস’ (The Eyes of Darkness) নামক উপন্যাসে, ‘ইউহান ৪০০’ নামে এই ভাইরাসের উল্লেখ রয়েছে। ‘ইউহান ৪০০’-কে করোনা ভাইরাস বলার প্রথম কারণটি হল- শহরটির নামও ইউহান; দ্বিতীয়ত, উপন‌্যাসে বর্ণিত ভাইরাস জৈব অস্ত্র হিসেবে গবেষণাগারে তৈরি করা হয়েছিল। এই উপন্যাসে বলা হয় চিনের একজন বিজ্ঞানী যার নাম লি চেন, তিনি চিন থেকে পালিয়ে আমেরিকায় বসবাস করছেন। সঙ্গে তিনি নিয়ে এসেছেন একটি ডিস্ক। যাতে আছে চিনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং সবচেয়ে বিপজ্জনক নতুন জৈব অস্ত্র ইউহান ৪০০-এর রেকর্ড।

এই উপন্যাসে আরও বলা হয় ওই ভাইরাস তারা অস্ত্র হিসেবে গবেষণাগারে তৈরি করছিল। কিন্তু তা কোনওভাবে ‘লিক’ হয়ে গিয়েই সাম্প্রতিক বিপত্তি সৃষ্টি হয়েছিল।

ডারেনপ্লাইমাউথ নামে এক টুইটার ব‌্যবহারকারী তাঁর একটি টুইটে বলেন, “আমরা এক অদ্ভুত দুনিয়ায় বাস করি!” এর সাথেই ওই বইটির ছবি দেন। এরপর নেটদুনিয়ায় কার্যত তুমুল হইচই শুরু হয়।এমনকি কংগ্রেস নেতা মণীশ তিওয়ারিও বইটির প্রচ্ছদ এবং কিছুটা অংশ উদ্ধৃত করে লেখেন, “সত্যিই কি করোনা ভাইরাস চিনের তৈরি জৈব অস্ত্র ইউহান-৪০০? বইটি ১৯৮১-তে প্রকাশিত হয়েছিল।” এই ঘটনার পর সকলে মনে করতে শুরু করেছে তবে কি এই ভাইরাস নির্মূল করতে ওই ৭৪ বছর বয়সি মার্কিন লেখকই একমাত্র সমর্থ? যদিও প্রশ্ন উঠছে আদপে কি এটি সত্য নাকি কোন কারণে মিলে গিয়েছে ঘটনাটি? যদি সত্যি হয়ও‌ তবে কি আদৌও প্রকাশ্যে আসবে?