ভারতের পথে হাঁটল আমেরিকাও! টিকটক নিষিদ্ধ করে চীনকে মোক্ষম জবাব ট্রাম্পের

0

ওয়াশিংটন ডিসি : করোনা সংক্রমণে সর্বাধিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আমেরিকা। এই নিয়ে চিনের উপর ভীষণ ভাবে ক্রুদ্ধ ট্রাম্প। তিনি করোনা মহামারী ছড়ানোর জন্য সরাসরি চিনকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন। চিন প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং তথ্য গোপন করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। আমেরিকায় দূতাবাস থেকে গোপন খবর পাচার করছে চিন। এমনই অভিযোগ করে আমেরিকা থেকে দূতাবাস বন্ধ করার নির্দেশ দেয় ট্রাম্প প্রশাসন। পাল্টা জবাবে চিনও সেই কাজ করেছে। এই নিয়ে চিনের সঙ্গে প্রকাশ্যে বিবাদে জড়িয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

এয়ারফোর্স ওয়ানের একটি অনুষ্ঠানে থেকেই এই বড় ঘোষণা করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তথ্যের সুরক্ষার খাতিরেই এই সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তিনি জানিয়েছেন চিনা অ্যাপ টিকটকের মাধ্যমে ব্যক্তিগত তথ্য পাচার হয়ে যাচ্ছে। যা দেশবাসীর পক্ষে ভাল নয়। এই আবহেই অবশ্য আমেরিকায় টিকটকের ভবিষ্যৎ নিয়ে বড়সড় প্রশ্ন চিহ্ন ফেলে দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। শুক্রবার ট্রাম্প বলেন, ‘‘আমরা আমেরিকায় টিকটক নিষিদ্ধ করতে চলেছি।’’

মনে করা হচ্ছিল, আমেরিকা টিকটককে নিষিদ্ধ না করে তাকে তার মূল চিনা সংস্থা বাইটড্যান্স থেকে আলাদা হয়ে যাওয়ার প্রস্তাব দিতে পারে। কিন্তু শুক্রবার তা খারিজ করে দিয়েছেন ট্রাম্প। মার্কিন প্রেসিডেন্ট এও বলেছেন, টিকটকের মতো সংস্থাকে নিষিদ্ধ করতে তিনি জরুরি অর্থনৈতিক ক্ষমতাও প্রয়োগ করতে পারেন। বিদেশি বিনিয়োগ সংক্রান্ত বিষয় খতিয়ে দেখার জন্য গঠিত কমিটির বৈঠকের পর পরই ট্রাম্পের এমন মন্তব্য তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে।

যদিও, নজরদারির অভিযোগ নিয়ে টিকটক-এর সিইও এবং বাইটড্যান্সের সিওও কেভিন মায়ের আগেই জানিয়ে দিয়েছেন, ‘‘আমরা রাজনৈতিক নই, আমরা রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন নিই না এবং আমাদের কোনও রাজনৈতিক অ্যাজেন্ডাও নেই। আমাদের একমাত্র উদ্দেশ্য প্রাণবন্ত রাখা এবং থাকা, যাতে সকলে জীবন উপভোগ করতে পারেন।’’

করোনা সংক্রমণ ছড়ানোর পরেই চিনকে বাঁচিয়ে রাখছে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা এমনই অভিযোগ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। চিনের দোষ ঢাকছে হু এই অভিযোগে আর্থিক সাহায্য বন্ধ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তার জেরে বিপুল ক্ষতির মুখে পড়তে হয়েছে হুকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here