৪০০০ টন জ্বালানী বহনকারী জাহাজে ফাটলের জেরে জারি হল জরুরি অবস্থা, ক্ষতির মুখে ১৩ লক্ষ জনসংখ্যা

0

জোহেনসবার্গ: জাপানের মালিকানাধীন একটি জাহাজ মরিশাসে আটকে পড়ে। জাহাজের তলদেশের একটি ছিদ্র দিয়ে বেশ কয়েক টন জ্বালানী বেরোনো শুরু হওয়ার পর শুক্রবার গভীর রাতে “জরুরি অবস্থা” ঘোষণা করা হয়। প্রধানমন্ত্রী প্রবীণ জগন্নাথ এই ঘোষণা তখন করেছিলেন যখন স্যাটেলাইট থেকে তোলা ছবি দেখায় নীল জলে ছড়িয়ে থাকা কালো-কালো তৈলাক্ত পদার্থ ছড়িয়ে রয়েছে যা সরকার “অত্যন্ত সংবেদনশীল” হিসাবে বর্ণনা করে।

মরিশাস বলে যে, জাহাজটি প্রায় ৪০০০ টন জ্বালানী বহন করছিল এবং এর তলদেশে ফাটল তৈরি হয়েছে। জগন্নাথ, এর আগে বিকেলে বলেছিলেন যে তাঁর সরকার ফ্রান্সের কাছে সাহায্যের জন্য আবেদন করছে। তিনি আরও বলেছিলেন যে, ১৩ লক্ষ জনসংখ্যা বিশিষ্ট তার দেশের জন্য এটি “মারাত্মক ক্ষতিকারক”। মূলত এটি পর্যটনের উপর নির্ভরশীল এবং বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস মহামারীর প্রভাব দ্বারা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ।

তিনি বলেন, “আমাদের দেশের কাছে আটকে পড়া জাহাজগুলিকে পুনরায় চালিত করার দক্ষতা আমাদের দেশে নেই, তাই আমি ফ্রান্স ও রাষ্ট্রপতি ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর কাছে সাহায্যের জন্য আবেদন করেছি।” তিনি আরও বলেন, “খারাপ আবহাওয়ার জন্য কোনোরকম ব্যবস্থা গ্রহণ করা অসম্ভব করে দাঁড়িয়েছিল এবং রবিবার (৯ আগস্ট) আবহাওয়া আরও খারাপ হয়ে গেলে কী হবে তা নিয়ে আমি উদ্বিগ্ন।”

ফ্রান্সের রিইউনিয়ন দ্বীপটি মরিশাসের নিকটতম প্রতিবেশী এবং ফরাসী বিদেশ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে যে ফ্রান্স মরিশাসের “বড় বিদেশী বিনিয়োগকারী” এবং এর বৃহৎ বাণিজ্য অংশীদারদের মধ্যে একটি। জগন্নাথ ‘এমভি ভাকাশিও’ জাহাজের একটি ছবি পোস্ট করেছিলেন যা বিপজ্জনকভাবে ঝুঁকে রয়েছে। মরিশাস মেটিরিওলজিকাল সার্ভিস জানিয়েছে, “সমুদ্রের মধ্যে চরম বিপদ রয়েছে। সমুদ্রে না যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।”