পাকিস্তানে গোপনে বৈঠক জইশ-আইএসআই-এর, সতর্ক ভারতীয় গোয়েন্দারা

0

নয়াদিল্লি: ভারতে আবারও বড় নাসকতা চালানোর জন্য পাক জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মহম্মদ মরিয়া হয়ে উঠেছে বলে গোয়েন্দা সূত্রে খবর রয়েছে। কাশ্মীরে আন্তর্জাতিক সমান্তে ভারতীয় সেনার কড়া নজরদারি এড়িয়ে ভারতে অনুপ্রবেশ করতে না পারার জন্য ভারতীয় স্থানীয় গুন্ডাদের কাজে লাগাচ্ছে পাক সন্ত্রাসবাদী দলগুলি। ঠিক এমনটাই তথ্য দিয়ে গোয়েন্দারা সতর্ক করেছে। তবে এবার গোপন সূত্রে খবর এসেছে পাকিস্তানের রাওয়ালপিণ্ডিতে জইশ-ই-মহম্মদের নেতা মৌলানা আবদুল রউফ আশগর এবং আইএসআই-এর দুই শীর্ষ অফিসার বৈঠক করেছে। সেটাই আরও একবার ভারতে ভয়াবহ জঙ্গি হামলার আশঙ্কাকে উস্কে দিয়েছে।

গত ২০ অগাস্ট পাকিস্তানের রাওয়ালপিণ্ডিতে জইশ-ই-মহম্মদের নেতা মৌলানা আবদুল রউফ আশগর এবং আইএসআই-এর দুই শীর্ষ অফিসার এই বৈঠক হয়েছে বলে গোয়েন্দারা জানতে পেরেছে। ঠিক এই রকমই একটি বৈঠক এই কয়জন মিলে পুলওয়ামা হামলার এক মাস আগে করেছিল সেটাই এখন গোয়েন্দাদের বড় মাথাব্যাথার কারণ। সেই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মৌলানা আশগরের ভাই আম্মারও। এই আম্বারা একই অডিয়ো ইমরান খানের কাছে পাঠিয়েছিল বালাকোটে ভারতীয় বায়ুসেনার হামলার পর। আইএএফের সাহসী অভিনন্দন বর্তমানকে মুক্তি দেওয়ার জন্য তিনি পাক প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনা করেছিলেন। কারণ আম্বার চেয়েছিলেন বালাকোটে জইশের তালিম-আল-কুরান মাদ্রাসায় হামলার প্রতিশোধ অভিনন্দন বর্তমানের উপর নিতে।

২০ অগাস্টের বৈঠকে উপস্থিত ছিল জইশের অপারেশাল কম্যান্ডার মুফতি আশগর খান কাশ্মীরি এবং কুয়ারি জারার। প্রাক্তন গেরিলা কমান্ডার আসগর কাশ্মীরি হলেন মজলিসে শূরের প্রাক্তন সদস্য হরকাতুল মুজাহিদিন, যিনি পরে তাঁর মুজাহিদ্দিনের দলের সাথে জেএম-এ যোগ দিয়েছিলেন। ২০১৬ সালের নাগরোটা সেনা সেনানিবাস হামলার পেছনে ছিলেন লঞ্চিং কমান্ডার জারার। এক সিনিয়র গোয়েন্দা অফিসার জানিয়েছেন ভারতে বড় কোনও হামলার পরিকল্পনা প্রায় শেষের পর্যায়ে এসে পৌঁছেছে। সেই নিয়েও তাদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে। ঠিক আর কি কি বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে তা জানার চেষ্টা করছে ভারতীয় গোয়েন্দারা।

ভারতীয় গোয়েন্দারা শীর্ষ পাঁচজন সন্ত্রাসবাদীর ওপরে নজর রেখেছেন তার মধ্যেই রয়েছে মারা। এই মারা হল জইশ প্রধান মৌলানা মাসুদ আজহারের ভাই মৌলানা আবদুল রউফ আশগার ওরফে মারা। এই খবর পাওয়ার পরেই গোয়েন্দারা আরও সতর্ক হয়েছে। জঙ্গিরা ভারতে হামলা করার জন্য ঠিক কি পরিকল্পনা করছে সেই তথ্যই খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে তাঁরা। ভারতে সন্ত্রাসবাদীদের পাঠাতে পারছে না বলেই পাক জঙ্গি সংগঠনগুলি আরও আগ্রাসী হয়ে উঠেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here