ভেঙেপড়া অর্থনীতি তবু হাতিয়ার কেনা চাই! ভ্যাকসিন কিনতে অনীহা ইমরা্ন খান সরকারের

0

করাচি: করোনা শেষের অপেক্ষায় বিশ্বজুড়ে শুরু হয়েছে টিকাকরণ প্রক্রিয়া। ইতিমধ্যেই ইজরায়েল, ইটালি, আমেরিকা সহ বেশ কিছু দেশ টিকাকরণ প্রক্রিয়ার অংশগ্রহণ করেছে। পিছিয়ে নেই ভারতও। শনিবার অনুমোদন প্রাপ্ত দুটি টিকা, কোভ্যাক্সিন ও কোভিডশিল্ডের টিকাকরণ শুরু হয়েছে ভারতে। খোদ প্রধানমন্ত্রী এর সূচনা করেন। চলতি মাসেই সেরামের টিকা পৌঁছে যাবে বাংলাদেশেও। কিন্তু এহেন পরিস্থিতিতে প্রশ্নের মুখে ইমরাম খানের সরকার। কারণ প্রতিষেধক কিনতে কোনও বরাত দেয়নি পাকিস্তান।

সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, কোনো টিকা প্রস্তুতকারক সংস্থা এখনও অবদি ইসলামাবাদের ভ্যাকসিনের বরাদ পায়নি। প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সরকারও টিকা কেনার জন্য বরাত দেয়নি। এই খবরের সত্যতা স্বীকার করেছেন ইমরান খানের স্বাস্থ্য বিষয়ক উপদেষ্টা ড. ফয়জল খান। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “ফ্রন্টলাইন করোনা যোদ্ধাদের জন্য দ্রুত ভ্যাকসিন আনার চেষ্টা করছি আমরা। তবে এখনও পর্যন্ত টিকা কেনার জন্য কাউকে বরাত দেওয়া হয়নি।”

যার ফলে দেশের ভিতরে ও বাইরে রোষের মুখে ইমরাম খানের সরকার। কারণ বাংলাদেশ ও পড়শি ভারতে টিকাকরণ শুরু হয়ে গিয়েছে। তবু পিছিয়ে পাকিস্তান। অনেকেই মনে করছেন, চিন থেকে সস্তায় টিকা কেনার জন্যই অপেক্ষা করছে পাকিস্তান। প্রশ্ন উঠছে, প্রায় ভেঙে পড়া অর্থনীতি সত্বেও হাতিয়ার কিনছে ইসলামাবাদ। তাহলে টিকা ক্রয়ে সরকারের গাফিলতি কেন।

পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, চিনা সরকারি সংস্থা সিনোফার্মের থেকে করোনা টিকা কেনার বিষয়ে আলোচনা চলছে। করাচিতে টিকটির প্রথম দফার ট্রায়াল শেষ হলে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে ইমরান প্রশাসন। প্রসঙ্গত, এপর্যন্ত পাকিস্তানে প্রায় ৫ লক্ষ মানুষ করণী আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১০ হাজার ৮৬৩ জনের। জানা গিয়েছে কোভ্যাক্স প্রকল্পের আওতায় অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা কেনার পরিকল্পনা করছে ইসলামাবাদ।