সেনা অভ্যুত্থানের জেরে মায়ানমারে ফের বড়সড় নিষেধাজ্ঞা ফেরাতে চলেছে বাইডেন প্রশাসন

0

ওয়াশিংটন: রাতারাতি সেনা অভ্যুত্থানের পর আমেরিকার বাইডেন প্রশাসন সতর্ক করেছি মায়ানমারকে। মায়ানমারে উপর পুরোনো নিষেধাজ্ঞা ফিরিয়ে আনার হুমকিও দেওয়া হয়েছি। এবার ইয়াঙ্গন-সহ বেশ কয়েকটি শহরে বার্মিজ সেনার সাঁজোয়া বাহিনী ঢুকে পড়ায় আন্তর্জাতিক স্তরে জটিল পরিস্থিতির মুখে পড়তে চলেছে মায়ানমার। কারণ রাস্তায় ট্যাংক ও সামরিক ট্রাকের দাপাদাপিতে সেখানকার নাগরিকদের জীবন শোচনীয়। এহেন পরিস্থিতিতে সে দেশে মার্কিন নাগরিকদের নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিতে বলেছে আমেরিকা।

সম্প্রতি এক বিবৃতি জারি করেছে মায়ানমারের মার্কিন দূতাবাস। সেখানে বলা হয়েছে, “ইয়াঙ্গন-সহ বেশ কয়েকটি শহরে বার্মিজ সেনার কার্যকলাপ বেড়ে গিয়েছে। সেখানে তাদের সাঁজোয়া বাহিনী ঢুকে পড়েছে। ইন্টারনেট যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যেতে পারে। তাই সমস্ত নাগরিকদের কাছে আমাদের আরজি, আপনারা নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যান। কারফিউ চলাকালীন বাড়ি থেকে বের হবেন না।”

প্রসঙ্গত নির্বাচনে জনতার সরকারকে ফেলে সেনা শাসন শুরু হয়েছে মায়ানমারে। সামরিক বাহিনীর বুটের তলায় গলা পিষ্ট গণতন্ত্র। আটক করে রাখা হয়েছে নেত্রী আং সাং সু কি ও তাঁর বিশ্বস্ত সহযোগীরা। সেনাদের অধীনে সেখানে শুরু হয়েছে স্বৈরাচারী শাসন। আর এই স্বৈরাচারী শাসনের বিরুদ্ধেই গর্জে উঠেছে মায়ানমারবাসী।

প্রতিদান সেখানে সেনা অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সামিল হচ্ছেন সাধারন মানুষ। দফায় দফায় সংঘর্ষ লাগছে সেনা ও সাধারণ মানুষের মধ্যেই। যতদিন যাচ্ছে আন্দোলন আরও জোরালো হচ্ছে। তাই বিক্ষোভকারীদের শায়েস্তা করতে বড়সড় অভিযানের পরিকল্পনা করেছে মায়ানমারের সেনাবাহিনী। তাই গণতন্ত্রকামী প্রতিবাদীদের গ্রেপ্তার করতে শহরগুলিতে প্রবেশ করেছে সৈনিকরা।

এবার সেই সেনা স্বৈরাচারী শাসনের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিতে চলেছে আমেরিকা। হোয়াইট হাউস জানিয়েছিল, মার্কিন নিষেধাজ্ঞার তালিকায় রয়েছে ‘টাটমাডাও’ বা বার্মিজ সেনার একাধিক কর্তা ও তাঁদের পরিবারের লোকজন। এর ফলে আমেরিকায় তাঁদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করা হবে। একইসঙ্গে, মায়ানমারে স্বাস্থ্য ও জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত সরঞ্জাম ছাড়া অন্য পণ্যের রপ্তানি বন্ধ করতে পারে ওয়াশিংটন। সেনাবাহিনীর উপর চাপ প্রয়োগ করতে এহেন সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে বাইডেন প্রশাসন।।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here